Easy Paragraph on Food Adulteration Latest (2022)

This paragraph is about Food Adulteration. It's a concise and easy paragraph. I think you will like it. This paragraph is only150-200 words. All class students can read and remember it.

Food Adulteration

Food is the basic necessity of life . It should be pure , nutritious and free from any type of adulteration for proper maintenance of human health . Food adulteration has become a new problem in our country . Food producers , importers and sellers are using different types of chemicals and ingredients in different food items to increase their shelf life or to make them look more attractive . Many of these ingredients and chemicals are detrimental to our health . Different reports show that adulterated foods are causing serious diseases including diarrhoea and dysentery round the year . Adulterated foods also cause cancer , insomnia , constipation , anaemia , mental retardation , etc. They can also lead to heart problems and high blood pressure . Many people are dying due to food adulteration . There are also many long term effects of food adulteration . A research shows that adulterated food may interrupt a child's mental development . Most of the foods are adulterated nowadays . Milk , baby foods , fruits , vegetables , juice , biscuits etc. are mostly adulterated . People have no other alternative but to eat them . Recently , the government and general public have become much more concerned about this issue . The government has set , mobile courts to detect and punish dishonest people who sell adulterated food . Some steps are taken by the conscious people of the country . For example , they are trying to avoid some of these foods . But it is not enough . Both the government and public have to work together in order to eradicate this problem . Moreover , law enforcing agencies must be more alert .

Easy Paragraph on Food Adulteration With Bangla meaning

খাদ্য ভেজাল 

খাদ্য জীবনের মৌলিক চাহিদা।  মানব স্বাস্থ্যের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এটি বিশুদ্ধ, পুষ্টিকর এবং যেকোনো ধরনের ভেজালমুক্ত হওয়া উচিত।  খাদ্যে ভেজাল আমাদের দেশে একটি নতুন সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।  খাদ্য উৎপাদনকারী, আমদানিকারক এবং বিক্রেতারা তাদের শেলফ লাইফ বাড়ানোর জন্য বা তাদের আরও আকর্ষণীয় দেখাতে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রীতে বিভিন্ন ধরণের রাসায়নিক এবং উপাদান ব্যবহার করছেন।  এর মধ্যে অনেক উপাদান এবং রাসায়নিক আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।  বিভিন্ন প্রতিবেদনে দেখা যায়, ভেজাল খাবার সারা বছরই ডায়রিয়া, আমাশয়সহ মারাত্মক রোগের কারণ হচ্ছে।  ভেজাল খাবার ক্যান্সার, অনিদ্রা, কোষ্ঠকাঠিন্য, রক্তস্বল্পতা, মানসিক প্রতিবন্ধকতা ইত্যাদির কারণও হয়। এগুলি হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপের কারণও হতে পারে।  খাদ্যে ভেজালের কারণে বহু মানুষ মারা যাচ্ছে।  এছাড়াও খাদ্যে ভেজালের অনেক দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব রয়েছে।  একটি গবেষণা দেখায় যে ভেজাল খাবার একটি শিশুর মানসিক বিকাশ ব্যাহত করতে পারে।  আজকাল বেশিরভাগ খাবারেই ভেজাল।  দুধ, শিশুর খাবার, ফলমূল, শাকসবজি, জুস, বিস্কুট ইত্যাদি বেশিরভাগই ভেজাল।  এগুলো খাওয়া ছাড়া মানুষের আর কোনো বিকল্প নেই।  সম্প্রতি এ বিষয়টি নিয়ে সরকার ও সাধারণ মানুষ অনেক বেশি উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।  ভেজাল খাবার বিক্রিকারী অসাধু ব্যক্তিদের শনাক্ত করে শাস্তি দিতে সরকার ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়েছে।  দেশের সচেতন মানুষ কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছেন।  উদাহরণস্বরূপ, তারা এই ধরনের কিছু খাবার এড়িয়ে চলার চেষ্টা করছে।  কিন্তু এটা যথেষ্ট নয় .  এ সমস্যা দূর করতে সরকার ও জনসাধারণ উভয়কেই একসঙ্গে কাজ করতে হবে।  তাছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আরও সতর্ক হতে হবে।
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url