আল্লাহ কাদির অর্থ কি । আল্লাহ কাদিরুন শব্দের অর্থ কি

আসসালামু আলাইকুম, প্রিয় পাঠকগণ আশা করি আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনারা সবাই ভাল আছেন । আজ আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করবো আল্লাহ কাদির বা আল্লাহ কাদিরুন শব্দের অর্থ কি তা নিয়ে । বিস্তারিত জানতে পুরো আর্টিকেলটি পড়ুন । 

আল্লাহ কাদির অর্থ কি । আল্লাহ কাদিরুন শব্দের অর্থ কি
 আল্লাহ কাদির অর্থ কি

আল্লাহ কাদির অর্থ কি । আল্লাহ কাদিরুন শব্দের অর্থ কি

আল্লাহ কাদিরুন । কাদীর অর্থ সর্বশক্তিমান । তাঁর মতো শক্তি আর কারও নাই । সর্বশক্তিমান আল্লাহ মানুষ সৃষ্টি করেছেন । তিনি মানুষের হন্য এই বিশাল পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন । পাহাড়-পর্বত, সাগর-মহাসাগর সৃষ্টি করেছেন । গাছপালা, পশুপাখি, জীবজন্তু এসব তিনিই সৃষ্টি করেছেন । 

আমাদের মাথার উপর যে বিস্তীর্ণ আকাশ তা সৃষ্টি করেছেন কে? 

এই আকাশ, চন্দ্র, সূর্য, গ্রহ, নক্ষত্র, নীহারিকাপুঞ্জ, ছায়াপত এসবই সৃষ্টি করেছেন সর্বশক্তিমান আল্লাহ । আমরা দেখি প্রতিদিন পূর্বাদিক রাঙা সূর্য উঠে । দিন হয়, আবার দিন শেষে পশ্চিম আকাশে সূর্য অস্ত যায় । রাত হয় । 

আরো পড়ুন:- 


দিন রাতের এ পরিবর্তন কে করেন? 

সর্বশক্তিমান আল্লাহই এ পরিবর্তন করেন । তিনি অসীম শক্তির অধিকারী । তাঁর হুকুমে পৃথিবীর সবকিছু চলে । মহাকাশের সবকিছুই তাঁর হুকুমে চলে । 


তাঁর ব্যবস্থাপনায় চন্দ্র-সূর্য, গ্রহ-নক্ষত্র ও নীহারিকাপুঞ্জ আপন কক্ষপথে পরিচালিত হয় । কোথাও কোনো অনিয়ম, বিশৃঙ্খলা বা সংঘর্ষ দেখা যায় না । মহান আল্লাহ আলো, বাতাস, আগুন, পানি সৃষ্টি করেছেন । তিনিই এসব নিয়ন্ত্রন করেন । মেঘমালা পরিচালনা করেন  । বৃষ্টিবর্ষন করে শুকনা মাটিতে প্রাণের সঞ্চার করেন । তাঁর ইচ্ছাতেই মরুভূমির বুক চিরে সুপেয় পানির ঝরনাধারা বেরিয়ে আসে । আমরা মাটিতে বীজ বপন করি, তা হতে চারা গজায় । 

আলো, বাতাস, পানি অনেক সময় আমাদের বিপদের কারন হয় । অতিবৃষ্টি, জলোচ্ছ্বাসে ঘরবাড়ি, গাছপালা ডুবে যায় । মানুষ ও পশুপাখি ভেসে যায় । ভূমিকম্প, ঝড়-তুফানে ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে যায় । আমাদের আস্রয়টুকুও থাকেনা । সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ‘সিডর’ ও ‘আইলার’ প্রভাবের কথা আমরা আজও ভুলতে পারিনি । এ ধরনের দুর্যোগে আমরা সর্বশক্তিমান আল্লাহর উপর ভরসা রাখব । আলো-বাতাস, আগুন-পানি সবকিছুই মহান আল্লাহর শক্তির অধীন । 
আল্লাহ শাস্তি দিতে চাইলে কেউ তাকে রক্ষা করতে পারে না । তিনি নমরুদ, ফিরআউনের মতো পরাক্রমশালী জালিম শাসকদের ধ্বংস করেছেন । হযরত নূহ (আ)-এর অবাধ্য সম্প্রদায়কে প্লাবনে ডুবিয়ে মেরেছেন । ছোট ছোট পাখি দ্বারা বাদশাহের বিশাল বাহিনীকে ধ্বংস করে দিয়েছেন । 


আল্লাহ তায়ালা রক্ষা করলে কেউ তাকে মারতে পারেনা । অত্যাচারী নমরুদ হযরত ইব্রাহীম (আঃ) কে পুড়িয়ে মারার জন্য অগ্নিকুন্ডে নিক্ষেপ করেছিল । কিন্তু আগুন তাঁকে স্পর্শও করতে পারেনি । কারণ আগুন সর্বশক্তিমান আল্লাহর আধীন । মহান আল্লাহ তায়ালা ফিরআউনের হাত থেকে হযরত মূসা (আঃ) কে রক্ষা করেছিলেন । ঈসা (আঃ) কে ঘাতকদের হাত থেকে রক্ষা করেছিলেন । আমাদের প্রিয় নবি হযরত মুহাম্মদ (সঃ) কেও কাফিরদের হাত থেকে রক্ষা করেছেন । 

শেষ কথাঃ 

আমরা মহান আল্লাহকে সর্বশক্তিমান হিসাবে বিশ্বাস করব । তাঁর কাছেই সাহায্য চাইব । কেবলমাত্র তাঁরই উপর ভরসা রাখব । আমাদের এই ওয়েবসাইটে এরকম আর্টিকেল পাবলিশ করা হয়, আপনি চাইলে আমাদের সাথে কানেক্টেড থাকতে পারেন । এতক্ষণ সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ ।   

Admin

Hello, This is Chhoyful Alam. Blogging is my dream. To realize that dream, I started blogging about education and technology. facebook

Post a Comment

Previous Post Next Post

Post 2